কলাপাড়া

কলাপাড়া

                                                                                                                                                                  

সাগর পাড়ের লাখ লাখ মানুষ
তাকিয়ে সেই মাহেন্দ্রক্ষণের দিকে

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আজ শনিবার সাগরপারের জনপদ কলাপাড়ায় আসছেন। ২৫ ফেব্রুয়ারির পুরো দিনটি পটুয়াখালী-৪ আসনের মানুষের সঙ্গে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে কাটাবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী হিসাবে এমন দৃষ্টান্ত আর দেখেননি এখানকার মানুষ। তাই প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে এখন গোটা দক্ষিণাঞ্চল ভাসছে আনন্দের জোয়ারে। গত একমাস ধরে এ উপলক্ষে কলাপাড়া পৌর শহর ছাড়াও অবহেলিত দুর্গম চরাঞ্চল নবগঠিত রাঙ্গাবালী উপজেলার মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে উৎসব মুখর পরিবেশ। এখানকার মানুষের প্রত্যাশার জায়গাটি যে মানুষটি অন্তর দিয়ে উপলব্ধি করতে পারেন সে আর কেউ নয়, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ১৯৯৮ সালের ১৪ মে যে মানুষটি নিজ হাতে কুয়াকাটার উন্নয়নে পর্যটন কর্পোরেশনের হলিডে হোমস ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছিলেন। আবার ঠিক আজ শনিবার পর্যটন কর্পোরেশনের আরেকটি আধুনিক ইয়থ-ইন মোটেলের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন। এখানকার মানুষের প্রাণের দাবিগুলো যেন বঙ্গবন্ধু কন্যা নিজের মতো করে পূরণ করে যাচ্ছেন। দেশ স্বাধীনের পরে যে মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জমি অধিগ্রহণের মধ্য দিয়ে পর্যটন কর্পোরেশনের অগ্রযাত্রা শুরু করেছিলেন। এরপরে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালো রাতে নির্মম, ইতিহাসের ঘৃন্যতম হত্যাকা-ের মধ্য দিয়ে থমকে দেয়া হয়েছিল সেই উন্নয়নের ধারা। আজ আবার তারই যোগ্য উত্তরসূরি জননেত্রী শেখ হাসিনা থমকে যাওয়া এই অঞ্চলের উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। এখানকার মানুষ যেন তাদের প্রত্যাশিত উন্নয়নের সঙ্গে প্রাপ্তির যোগসূত্র খুঁজে পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে। কারণ দেশ স্বাধীনের তিন যুগ সময় পেরিয়ে গেলেও কোন সরকার কলাপাড়া-কুয়াকাটা সড়কের তিনটি নদীর উপরে তিনটি ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। ওই ব্রিজ তিনটির কাজ শুরু করা হয়েছে। একটির কাজ প্রায় ৭০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। এসব ব্রিজের নামকরণ করা হয়ে শিববাড়িয়া নদীতে শেখ রাসেল সেতু, সোনাতলা নদীতে শেখ জামাল সেতু ও আন্ধারমানিক নদীতে শেখ কামাল সেতু। যার আনুষ্ঠানিক ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী। নবগঠিত রাঙ্গাবালী উপজেলা ক্যাম্পাসের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যক্রম শুরু। এর পরে সেখানকার দলীয় নেতাকর্মী ও সূধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। তার পরে কুয়াকাটা পৌর সভা ভবনের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন, পর্যটন এলাকার ২০ শয্যার হাসপাতালের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন ও পর্যটন কর্পোরেশনের ইয়থ-ইন মোটেলের উদ্বোধন করবেন। এরপরে হেলিকপ্টারযোগে পর্যটন শহর কলাপাড়ায় আগমন। বিকাল তিনটায় সেখানে সর্বশেষ কর্মসূচি মোজাহারউদ্দিন বিশ্বাস কলেজ মাঠে জনসভা। আর এই জনসভায়র মধ্য দিয়ে আরও নতুন কি কি প্রত্যাশার পূরণ কিংবা প্রতিশ্রুতি মিলবে তার হিসাব কসছেন এখানার মানুষ। কলাপাড়ার লালুয়ায় রামনাবাদ চ্যানেলে দেশের তৃতীয় সমুদ্র বন্দরের কার্যক্রম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর মুখ থেকে তার সরকারের ভবিষ্যত করণীয় কী তা শোনার অধীর অপেক্ষায় ক্ষণ গুনছেন।
এতোসব প্রাপ্তির সঙ্গে প্রত্যাশা যেন আরও বাড়িয়ে দিয়েছে সাগর পারের মানুষকে। তাই তারা দাবি তুলেছে তিন যুগ আগে মহাকুমা ঘোষণার যে দাবি ছিল সেই কলাপাড়াকে জেলায় উন্নীতের। একই সঙ্গে বর্তমান সময়ের আলোচিত বিষয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রমের অগ্রগতির খবর প্রধানমন্ত্রীর মুখ থেকে শুনতে চায় সাগর পারের মানুষ। এমনসব দাবির পক্ষে প্রতিদিন হচ্ছে মিছিল মিটিং কিংবা জনসভা। কলাপাড়া কুয়াকাটা মহাসড়ক ছাড়াও সর্বত্র এখন শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল বর্ণিল পোস্টার, ফেস্টুন আর ব্যানার। যেখানে শোভা পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী এবং এখানকার আসনের সংসদ সদস্য পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব মো. মাহবুবুর রহমানের ছবি। এখানকার মূল পেশার কৃষকরা এবার জোরালো দাবি তুলেছে কলাপাড়াকে দুর্যোগে বিশেষ ঝুঁকির এলাকা হিসাবে ঘোষণা দেয়ার। পাশাপাশি সিডর আইলার তান্ডবের কারনে লোনা পানির কবল থেকে ধানসহ বিভিন্ন ফসল রক্ষা করতে খাল খনন করে মিঠা পানি সংগ্রহের বিশেষ উদ্যোগের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চায় আজকের জনসভা থেকে।
এখানকার লাখো পরিবারের কাছে এমনসব প্রত্যাশা আজকের জনসভার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী পূরণ করবেন বলে মানুষ অপেক্ষার প্রহর গুনছেন। এখানকার অবহেলিত জনপদের মানুষের মুখে মুখে শোনা যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী পুরো একটি দিন পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের জনগণের মধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে অতিবাহিত করছেন। তাই ভাষা দিবসের মাসের ২৫ ফেব্রুয়ারি তারিখটি নতুন করে স্মরণীয় হিসাবে থাকবে তাদের কাছে। এখন সেই মাহেন্দ্রক্ষণের দিকে মুখিয়ে আছেন সাগরপাড়ের লাখ লাখ মানুষ।

                                                                                                                                                                  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ
রাঙ্গাবালী ও কলাপাড়া সফরে আসছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শনিবার রাঙ্গাবালী ও কলাপাড়া সফর করবেন। প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি অনুযায়ী আজ শনিবার সকাল সাড়ে নয়টায় তেজগাঁও বিমান বন্দরের উদ্দেশ্যে যাত্রা, ৯টা ৪০ মিনিটে পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী উপজেলার উদ্দেশ্যে যাত্রা, ১০টা ৪৫ মিনিটে রাঙ্গাবালী উপজেলা কমপ্লেক্সস্থ মাঠে নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ, ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত রাঙ্গাবালী উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্সের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময়, ১২ টা ১০ মিনিটে কুয়াকাটার উদ্দেশ্যে যাত্রা, ১২ টা ২৫ মিনিটে কুয়াকাটায় নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ, সাড়ে বারটায় কুয়াকাটা ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের উদ্বোধন, ১২ টা ৪৫ মিনিট থেকে ১২ টা ৫৫ মিনিট পর্যন্ত পর্যটন কর্পোরেশনের অধীন যুব পান্থনিবাসের উদ্বোধন এবং কুয়াকাটা পৌরসভার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, দুপুর ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত মধ্যাহ্ন বিরতি ( পর্যটন হোটেল পান্থনিবাসে দুপুরের আহার ও বিশ্রাম), ২টা ৫ মিনিটে কুয়াকাটায় নির্মিত হেলিপ্যাডের উদ্দেশ্যে যাত্রা, ২ টা ১৫ মিনিটে কলাপাড়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা, ২টা ২৫ মিনিটে কলাপাড়ায় নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ, ২ টা ৩০ মিনিট থেকে ২ টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত খেপুপাড়া আন্ধারমানিক নদীর উপর শহীদ শেখ কামাল সেতু, হাজীপুর নদীর উপর শহীদ শেখ জামাল সেতু, মহিপুর-আলীপুর নদীর উপর নির্মানাধীন শহীদ শেখ রাসেল সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং কলাপাড়া ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের উদ্বোধন (স্থান এবিএম কলেজ মাঠ, কলাপাড়া), ২টা ৫০ মিনিট থেকে ৪টা পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এমবি কলেজ মাঠে জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান, ৪টা ৫মিনিটে কলাপাড়ায় নির্মিত হেলিপ্যাডের উদ্দেশ্যে যাত্রা, ৪টা ১৫ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা। বর্তমান সরকারের সময়কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পটুয়াখালীতে এটাই প্রথম সফর হবে। প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার প্রলয় কুমার জোয়ারদার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

Advertisements

পোষ্টটি আপনার কেমন লেগেছে? মন্তব্য করে জানান।

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: