Daily Archives: 21/02/2012

একুশের কৃষ্ণচূড়া আমাদের চেতনার রঙ

ফোকাস বাংলা ॥ ‘আবার ফুটেছে দেখো কৃষ্ণচূড়া থরে থরে শহরের পথে কেমন নিবিড় হয়ে, কখনো মিছিল, কখনো বা একা হেঁটে যেতে যেতে মনে হয়- ফুল নয় ওরা- শহীদের ঝলকিত রক্তের বুদ্বুদ, স্মৃতিগন্ধে ভরপুর, একুশের কৃষ্ণচূড়া আমাদের চেতনার রঙ। আগুনঝরা দ্রোহ আর বাঙালির জাগরণের অমর ভাষা আন্দোলনের মাস একুশে ফেব্রুয়ারি। রক্তস্নাত ভাষা আন্দোলনের স্মারক মহান শহীদ দিবস একুশে ফেব্রুয়ারি। স্বজন হারানোর বেদনাদীর্ণ শোকের দিন। পৃথিবীর ইতিহাসে মাতৃভাষার জন্য রাজপথে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেওয়ার প্রথম নজির। কালক্রমে সেই শোকের দিন উত্তীর্ণ হয়েছে বাঙালির জাগরণের মহাশক্তির প্রতীক হিসেবে। মঙ্গলবার ভাষা আন্দোলনের ৬০ বছর পূর্ণ হচ্ছে। শুধু বাংলাদেশে শহীদ দিবস নয়, একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হয় বিশ্বের ১৮৮টি দেশে। আজ থেকে ৬০ বছর আগে বায়ান্নর একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ঢাকার রাজপথ রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল। বরকত, রফিক, সালাম, জব্বারসহ নাম না জানা বেশ ক’জন শহীদের তাজা রক্তের বিনিময়ে রাষ্ট্রভাষা বাংলার আন্দোলন সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছিল; যার চূড়ান্ত রূপ হিসেবে বাংলা রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা লাভ করে। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন তাই এদেশের রক্তঝরা প্রথম গণতান্ত্রিক আন্দোলন। ১৯৪৮ সালে মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবির মধ্য দিয়ে যে সংগ্রামের শুরু, বায়ান্নতে সেই আন্দোলনের চূড়ান্ত পরিণতি রক্তের আখরে। ১৯৪৮ সালের ২১ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে অনুষ্ঠিত সমাবর্তনে পাকিস্তানের তদানীন্তন গভর্নর মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ দম্ভভরে উচ্চারণ করেন, ‘উর্দু, কেবল উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা।’ এ ঘোষণায় সেখানে উপস্থিত ছাত্রদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়। ছাত্ররা প্রকাশ্যে জিন্নাহর এ ঘোষণার প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদে ফেটে পড়ে বাংলার মানুষ। সে বছরই গঠিত হয় সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ। শুরু হয় মাতৃভাষার অধিকার আদায়ের জন্য বাঙালির প্রাণপণ সংগ্রাম। বায়ান্নর ২১ ফেব্রুয়ারির সেই সকালে বর্তমান ঢাকা মেডিকেল কলেজে স্থাপিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলার সভা থেকে ডাক আসা মাত্রই ১৪৪ ধারা ভাঙতে একের পর এক দশজনের মিছিল বের হতে থাকে বিশ্ববিদ্যালয় গেট থেকে। সেদিন বিকেল সাড়ে তিনটায় অনুষ্ঠেয় প্রাদেশিক পরিষদের অধিবেশনকে ঘিরে রাষ্ট্রভাষার দাবিতে পরিষদ ভবনের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের প্রস্তুতি নিয়ে ছাত্ররা সমবেত হয় মেডিকেল কলেজ হোস্টেল গেটের সামনেও। সকাল থেকে শুরু হওয়া ছাত্র-জনতার সঙ্গে রক্তাক্ত সংঘর্ষের একপর্যায়ে পুলিশ হঠাৎ মেডিকেল হোস্টেল গেটের সামনে ও বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠে জড়ো হওয়া ছাত্র-জনতার ওপর গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই শহীদ হন আবুল বরকত, রফিকউদ্দিন আহমদ ও আবদুল জব্বার। পরদিন ২২ ফেব্রুয়ারি পুলিশের গুলিতে শহীদ হন সফিউর রহমান, রিকশাচালক আবদুল আউয়াল, অহিউল্লাহসহ অসংখ্য অজ্ঞাত মানুষ। এ ছাড়া ২১ ফেব্রুয়ারি পুলিশের গুলিতে গুরুতর আহত আবদুস সালাম মারা যান ৭ এপ্রিল।
এদিকে ভাষার জন্য রাজপথের এ আত্মবলিদান গোটা দেশেই আন্দোলনকে দাবানলের মতো ছড়িয়ে দেয়। ২৩ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি গোটা প্রদেশে হরতাল পালিত হয়। ২৭ ফেব্রুয়ারি অনির্দিষ্টকালের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হলেও আন্দোলন অব্যাহত থাকে। গণআন্দোলনের মুখে শেষ পর্যন্ত ১৯৫৬ সালে পাকিস্তানি সামরিক শাসকরা নতিস্বীকারে বাধ্য হলে বাঙালির আন্দোলনের বিজয় Read the rest of this entry

Advertisements

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় বৃত্তি পেল ৫৪ হাজার ৯১৮ জন

ফোকাস বাংলা ॥ প্রাথমিক বৃত্তির ফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে মোট ৫৪ হাজার ৯১৮ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পেয়েছে। এর মধ্যে মেধা কোটায় ২১ হাজার ৯৯৮ জন, সাধারণ কোটায় ৩১ হাজার ৭০৮ জন এবং সম্পূরক (এক এলাকায় বরাদ্দ না পেলে পার্শ্ববর্তী এলাকায় তা বণ্টন করা হয়) বৃত্তি পেয়েছে Read the rest of this entry

%d bloggers like this: