ফেসবুক টাইমলাইন খুঁটিনাটি


প্রযুক্তি ডেস্ক
গেলো বছর সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের সানফান্সিসকোতে সামাজিক যোগাযোগের সাইট ফেসবুকের প্রোগামারদের সম্মেলনে সাইটটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জুকারবার্গ উন্মোচন করেন ফেসবুকের নতুন রূপ “ফেসবুক টাইমলাইন” ।শুরু থেকেই আলোচনা সমালোচনায় থাকা এই ফেসবুক টাইমলাইন বেশ কিছুদিন পরীক্ষামূলকভাবে চালু থাকার পর অবশেষে সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয় ।ফেসবুক ব্লগ এর তথ্য অনুযায়ী যারা এখনোও ফেসবুক টাইমলাইন অ্যাক্টিভেট করেননি কিছুদিনের মধ্যে তাদের প্রোফাইলেও স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হয়ে যাবে টাইমলাইন ।নতুন এই ফেসবুক টাইমলাইন অনেকের কাছেই এখনও দুর্বোধ্য ।অনেকেই বুঝে উঠতে পারছেন না কিভাবে কি করবেন ।ফেসবুক টাইমলাইন এর খুঁটিনাটি নিয়েই এই প্রতিবেদন ।ফেসবুক টাইমলাইন কি ?
টাইমলাইন হল ফেসবুক প্রোফাইলের নতুন চেহারা যা ব্যবহারকারীকে যে কোনো মুহূর্তে তার অতীত থেকে ঘুরে আসার সুযোগ দেয় ,দেখাতে পারে এই সময়ে আগের বছরগুলোতে সে কি কি করেছিলো ।ইচ্ছে করলে আপনি আপনার জন্মসময় থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত তথ্য দিয়ে একে ভরিয়ে নিজের আত্মজীবনি বানিয়ে ফেলতে পারবেন ।ফেসবুক টাইমলাইন হল তথ্য গল্প ছবি ও অভিঙ্গতার সমষ্টি যা ব্যবহারকারীর জীবনের গল্প বলবে ।নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্হাপন করার নতুন এক প্রয়াস এই টাইমলাইন ।সেইসাথে টাইমলাইন এর মাধ্যমে আপনি আপনার দেয়া বিভিন্ন ,পোস্ট ,ছবি কিংবা ভিডিওর গোপনীয়তা খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ।এক কথায় একটি সাধারণ প্রোফাইলের অসাধারণ এক নতুন রূপায়ন হল ফেসবুক টাইমলাইন ।

শুরু করবেন যেভাবে
যারা এখনোও টাইমলাইন চালু করেননি তাদের প্রোফাইলে টাইমলাইন চালু করার একটি নোটিশ দেয়া হয়েছে।যদি সেরকম কোনো নোটিশ না পেয়ে থাকেন তবে টাইমলাইন চালু করতে http://www.facebook.com/about/timeline এই ঠিকানায় গিয়ে Get Timeline বাটনটি ক্লিক করুন ।চালু হয়ে যাবে আপনার টাইমলাইন ।তবে চালু হলেও উপরের Publish বোতামে ক্লিক না করা পর্যন্ত আপনার টাইমলাইন অন্য কেউ দেখতে পারবেনা ।চালু করার পর ফেসবুক আপনাকে সাতদিন সময় দিবে নিজের প্রোফাইল ঠিকঠাক করবার জন্যে ।তবে ইচ্ছে করলে এই সাতদিনের যে কোনো সময় Publish বোতামে ক্লিক করে আপনার টাইমলাইন অন্যদের জন্য উন্মুক্ত করতে পারবেন ।সাতদিনের মধ্যে Publish না করলেও সাতদিন পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে এটি অন্যদের জন্য উন্মুক্ত হয়ে যাবে ।

কভার ছবি যোগ করা
টাইমলাইন অ্যাক্টিভেট করার পর সবচেয়ে বড় যে পরিবর্তন নতুন ব্যবহারকারির চোখে পড়বে তা হলো এর কভার ।এটি প্রোফাইল ছবির পাশাপাশি সম্পূর্ণ পৃষ্ঠা বিস্তৃত একটি বড় ছবি যা প্রোফাইল ছবির উপরে থাকে ।প্রোফাইল ছবির মতই এটি সকলের জন্য উন্মুক্ত অর্থাত্‍ যে কেউ আপনার টাইমলাইনে আসলে এই ছবিটি দেখতে পারবে তবে প্রোফাইল ছবির মতো সাইটের যত্রতত্র একে দেখা যাবেনা।কভার ছবি যোগ করতে Add a cover বোতামটি চাপুন ।পূর্বের কোনো ফেসবুক এলবাম অথবা হার্ডডিস্ক থেকে নতুন কোনো ছবি নির্বাচন করে আপলোড করুন।তবে ছবিটি অবশ্যই 720 পিক্সেল প্রশস্ত হতে হবে ।ইচ্ছে করলে যে কোনো সময় কভার ছবি সম্পাদনা ,পরিবর্তন বা মুছে ফেলা যাবে ।

ব্যক্তিগত তথ্য সম্পাদনা
কভার ছবির নিচেই পাবেন Update info অপশনটি ।এই অপশনটি ক্লিক করে আপনি আপনার Basic Info (gender, birthday, languages, political and religious views),Contact Info (email address, screen name, phone number, address, website),Work and Education, Home (hometown and current city), Relationships and Family ,Favorite Quotations, About You এই তথ্যগুলো সম্পাদনা করতে পারবেন ।এই তথ্যগুলো কিভাবে অন্যের কাছে উপস্হাপন করবেন অর্থাত্‍কার কাছে তথ্যগুলো কতটুকু দৃশ্যমান হবে সেটাও সম্পাদনা করতে পারবেন প্রতিটি তথ্যর ডান পাশের Edit অপশনটির মাধ্যমে ।যেমন ধরুন আপনি আপনার Contact info কে কে দেখতে পারবে তা নির্ধারন করতে চান ।ডান পাশের Edit অপশনটি ক্লিক করে লক্ষ্য করুন আপনার Email address, Phone number কিংবা Address প্রতিটির ডানপাশেই প্রাইভেসি সেটিংস এর জন্য আলাদা একটি Dropdown মেনু চলে এসেছে ।এখান থেকে নির্বাচন করুন কোন তথ্য কতটুকু অন্যের কাছে দৃশ্যমান হবে ।যদি Public অপশনটি Select করেন তবে তথ্যগুলো যে কেউ দেখতে পারবে ।যদি Friends অপশনটি select করেন তবে তথ্যগুলো শুধু ফেসবুক বন্ধুরাই দেখতে পারবে । যদি অন্য কাউকে দেখাতে না চান তাহলে Only Me অপশনটি নির্বাচন করুন।এমনকি আপনি চাচ্ছেন আপনার তথ্যগুলো ওমুক বন্ধু যেন দেখতে না পারে অথবা শুধুমাত্র ওমুক বন্ধুই দেখবে আর কেউই দেখতে পারবেনা সেরকম করারও সুবিধা রয়েছে এখানে ।এজন্য Dropdown মেনু থেকে Custom অপশনটি select করুন। এখন Make this visible to বক্সে ক্লিক করে Specific People নির্বাচন করতে পারবেন যারাই শুধু তথ্যগুলো দেখতে পারবে তাদের নাম লিখে Save করুন।যদি কিছু নির্দিষ্ট বন্ধু ছাড়া বাকি সবার সঙ্গে শেয়ার করতে চান, তাহলে Hide this from বক্সে তাদের নাম লিখে Save করুন।এভাবে আপনার ব্যক্তিগত প্রতিটি তথ্যই সম্পাদনা করতে পারবেন ।

অ্যাক্টিভিটি লগ
কভার ছবির নিচে Update info অপশনের পাশেই রয়েছে Activity Log অপশন । অপশনটি ক্লিক করে নতুন পেজ এলে দেখতে পারবেন ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খোলার পর থেকে আজ পর্যন্ত আপনার সমস্ত Activity তারিখ অনুযায়ী সাজিয়ে রাখা হয়েছে ।টাইমলাইন সম্পাদনা করার সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে এই Activity Log ।আপনার Activity Log শুধু আপনিই দেখতে পারবেন এবং আপনার যে কোনো Activity অথবা Post এর ডান পাশের Dropdown মেনুর মাধ্যমে ইচ্ছেমতো মুছে ফেলা ,লুকিয়ে ফেলা অথবা সম্পাদনা করতে পারবেন ।আপনাকে যে সমস্ত পোস্টে অথবা ছবিতে ট্যাগ করা হয়েছে বা আপনি কোন কোন পেজ লাইক করেছেন ইত্যাদি তথ্যও এখানে পাবেন Activity Log সবসময় আপনার সর্বশেষ কাজগুলো উপরে দেখাবে ।স্ক্রুল করে যত নিচে নামবেন তত অতীতে ফিরে যাবেন ।এছাড়া অ্যাক্টিভিটি লগ পেজের ডানপাশেই দেখতে পারবেন বছর বা মাস দিয়ে দাগ কাটা টাইমলাইন স্কেলটি ।স্কেলে থাকা বছর বা মাসের যেটিতে ক্লিক করবেন সাথেসাথেই ঐ সময়ের কাজ গুলোকে আপনাকে প্রদর্শন করবে ।আর তাই টাইমলাইনে কোন কিছু পোস্ট করবার সময় তারিখ নির্বাচন করবার সুবিধা দেয়া হয়েছে। আপনি যদি পুরানো কোন ছবি আপলোড করেন তাহলে সেগুলোতে পুরনো তারিখ দেয়া যাবে। আর সেটা ক্রমানুসারে আপনার টাইমলাইনে পোস্ট হয়ে যাবে।

বন্ধু সম্পাদনা
আপনার ফেসবুক বন্ধুদের তালিকা দেখতে ,কাউকে তালিকা হতে বাদ দিতে এবং নতুন বন্ধু খুঁজে পেতে কভার ছবির নিচে Friends ইউনিটটিতে ক্লিক করুন ।এখন যে পেজটি আসবে সেটির উপরের অংশে ডানপাশে Edit অপশনটি দেখতে পারবেন ।এর মাধ্যমে আপনি ফেসবুক বন্ধু তালিকার প্রাইভেসি সেটিংস অর্থাত্‍ কারা কারা আপনার বন্ধু তালিকা দেখতে পারবে তা সম্পাদনা করতে পারবেন ।

ছবি বা ভিডিও আপলোড করা এবং সম্পাদনা
নতুন ছবি যোগ করতে কিংবা পুরোনো ছবি বা ভিডিও অ্যালবাম দেখতে কভার ছবির নিচে Photos ইউনিটটিতে ক্লিক করুন ।এখন যে পেজটি আসবে সেখানে আগের সব ফটো অ্যালবামগুলো দেখতে পারবেন ।নতুন ছবি upload করতে পেজটি উপরের অংশে ডানপাশে Add photos তে ক্লিক করুন এবং হার্ডডিস্ক থেকে নতুন কোনো ছবি নির্বাচন করে আপলোড করুন।পুরোনো অ্যালবামে ছবি যোগ করতে সেই অ্যালবামে আগে ঢুকুন তারপর Add photos এ ক্লিক করুন ।ছবি upload হয়ে গেলে অ্যালবামটির নাম ও বর্ণনা দিন এবং প্রাইভেসি সেটিংস এর জন্য ডানপাশে নিচের দিকে Dropdown মেনু থেকে পছন্দমত প্রাইভেসি অপশন Select করুন ।যদি আপনি কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে অ্যালবামটি দেখাতে চান অথবা দেখাতে না চান সেটাও সম্পাদনা করা যাবে Custom প্রাইভেসি অপশনটির মাধ্যমে অর্থাত্‍ যে নিয়মে ব্যক্তিগত তথ্য এর প্রাইভেসি সম্পাদনা করা হয়েছিল সেই নিয়মে এখানেও প্রাইভেসি সম্পাদনা করতে পারবেন।প্রতিটি ছবির জন্য আলাদা করে প্রাইভেসি সেটিংস এর উপায় না থাকলেও প্রতিটি অ্যালবামে Edit Album নামে একটি অপশন রয়েছে যার মাধ্যমে যেকোনো সময় যেকোনো অ্যালবামের প্রাইভেসি কিংবা ছবি আপলোডের সময়কাল ,স্থান পরিবর্তন ইত্যাদি করা যাবে ।তবে Wall Photos এবং Mobile Upload এই দুটি অ্যালবামের প্রতিটি ছবিতে আলাদাভাবে প্রাইভেসি সেটিংস দেয়া যায়।
ভিডিও আপলোড করতে একইভাবে Add video তে ক্লিক করুন ।ফেসবুকে সর্বোচ্চ ২০ মিনিটের কোন ভিডিও আপলোড করা যায় এবং ফাইলের আকার ১০২৪ মেগাবাইটের বেশি হওয়া যায় না ।

টাইমলাইন ম্যাপ
আপনি কোথায় থাকেন ,এই মুহূর্তে কোথায় আছেন ,কোথায় কোথায় ভ্রমন করেছেন ,বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান কালে বিভিন্ন ঘটনা ,ভ্রমনের ছবি এগুলোকে একসাথে একটি মানচিত্রের মাধ্যমে সাজিয়ে রাখতেই ম্যাপ ইউনিটটি ।কভার ছবির নিচে Photos ইউনিট এর পাশের Map অপশনটি ক্লিক করে সাজিয়ে নিতে পারবেন আপনার টাইমলাইন ম্যাপ ।

টাইমলাইনে স্ট্যাটাস আপডেট
ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার ক্ষেত্রে টাইমলাইনের সুবিধা হল প্রতিটি স্ট্যাটাসের সাথে তারিখ,অবস্হান ,কাউকে ট্যাগ করা ইত্যাদি নির্বাচন করা যায় ।স্ট্যাটাস বক্সটির নিচেই এই অপশনগুলো রয়েছে ।ইচ্ছে করলে এখন আপনি ১0 বছর আগের স্ট্যাটাসও দিতে পারবেন ।সেইসাথে পোস্ট করা কোন স্ট্যাটাস সম্পাদনা করার সুবিধাও রয়েছে স্ট্যাটাসের ডান পাশের Dropdown মেনুর মাধ্যমে ।প্রয়োজনে স্ট্যাটাসের দিন তারিখ পরিবর্তন ,মুছে ফেলা ,লুকিয়ে ফেলা ,কতটুকু দৃশ্যমান হবে তাও সম্পাদনা করা যাবে ।এমনকি আপনি চাচ্ছেন আপনার স্ট্যাটাসটি ওমুক বন্ধু যেন দেখতে না পারে অথবা শুধুমাত্র ওমুক বন্ধুই দেখবে আর কেউই দেখতে পারবেনা সেরকম করারও সুবিধা রয়েছে প্রতিটি পোস্ট করা স্ট্যাটাসের উপরের প্রাইভেসি সেটিংস এর Dropdown মেনুতে ।
Status অপশনটির পাশেই রয়েছে Photo অপশনটি যার মাধ্যমে আপনার টাইমলাইন ওয়ালে যে কোনো ছবি আপলোড করতে পারবেন ।এরপর রয়েছে Place অপশনটি যার মাধ্যমে আপনি বর্তমানে কোথায় অবস্থান করছেন তার আপডেট দিতে পারবেন ।তার ডান পাশেই আছে Life event অপশনটি ।এখানে আপনি শিক্ষা জীবন ,চাকরি জীবন কিংবা পারিবারিক জীবনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন ঘটনাগুলো Highlight করতে পারবেন ।যেমন ,আপনি কবে চাকরিতে যোগদান করেছেন কিংবা আপনার বিয়ের দিন,কবে বাবা/মা হলেন ইত্যাদি ঘটনা গুলো Add করতে পারবেন ।প্রতিটি ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট ছবিও লাগিয়ে দিতে পারবেন ।

অ্যাকাউন্ট সেটিংস
প্রতিটি ফেসবুক পাতার একেবারে উপরের অংশে ডান দিকের কোণায় Home এর পাশে একটি Dropdown মেনু রয়েছে যাতে ক্লিক করলে আপনি পাবেন Account settings, Privacy setting, Log out এবং Help center এই চারটি অপশন ।
Account settings এ গেলে প্রথমেই আসবে General settings ।এই অংশে আপনি ফেসবুক আইডির নাম পরিবর্তন , ব্যবহারকারী নাম/ইউজার নেম যুক্ত করা,ই-মেইল ঠিকানা বদলানো
পাসওয়ার্ড পরিবর্তন ,নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হওয়া এবং ফেসবুকের ভাষা পরিবর্তন এই কাজগুলো করতে পারবেন ।ফেসবুক অ্যাকাউন্ট Hacking বা Disable হলেও যাতে কোনো তথ্য হারাতে না হয়, এ জন্য ফেসবুকের ব্যাকআপ রাখতে পারেন। ফেসবুকের ব্যাকআপ রাখার জন্য General settings এ সবার নিচে Download a copy-এ ক্লিক করুন। নতুন পেজ এলে Start My Archive-এ ক্লিক করুন। এখন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের একটি ব্যাকআপ প্রোফাইল তৈরি হতে থাকবে। ব্যাকআপ প্রোফাইল তৈরি হয়ে গেলে আপনার ই-মেইল ঠিকানায় একটি মেইল যাবে। পুনরায় General settings এর Download a copy-এ ক্লিক করে আপনার ফেসবুকের ব্যাকআপ প্রোফাইলটি ডাউনলোড করতে পারবেন।ডাউনলোড হওয়ার পর জিপ ফাইলটি আনজিপ করুন। এখন index ফাইলটি ওপেন করলে আপনি আপনার ফেসবুকের সবকিছু দেখতে পারবেন।

ফেসবুক ইমেইল ঠিকানা
আপনার ফেসবুক ইমেইল ঠিকানা হবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর ব্যবহারকারী নাম বা ইউজার নেম এর উপর ভিত্তি করে।ইউজারনেম ব্যবহার করলে ফেসবুকে কাউকে সহজেই খুঁজে পাওয়া যায় এবং ইমেইল এর পাশাপাশি নিজের একটি আলাদা ফেসবুক ঠিকানা (লিংক) হয়। আপনার যদি ফেসবুক ইউজার নাম আগে থেকে ঠিক না করা থাকে তাহলে এখনই ঠিক করে নিন। ফেসবুক ইউজার নেম ঠিক করার জন্য প্রথমে Account Settings-এ ক্লিক করুন। নতুন পেজ এলে Username অপশনটি পাবেন ।সেখান থেকে Username-এর ডান পাশের Edit-এ ক্লিক করুন। Username বক্সে কমপক্ষে পাঁচ বর্ণের কোনো নাম লিখুন। নামটি ফাঁকা থাকলে Save Changes-এ ক্লিক করুন। আর ফাঁকা না থাকলে অন্য নাম দিয়ে আবার চেষ্টা করুন। ধরুন, আপনি ইউজারনেম নির্বাচন করেছেন shtanjil.BD, তাহলে আপনার ফেসবুকের ঠিকানা হবে http://www.facebook.com/ shtanjil.BD এবং ফেসবুক ইমেইল ঠিকানা হবে shtanjil.BD@ facebook.com ।

অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা
Account settings এ গিয়ে বামপাশের মেনুতে General এর নিচেই পাবেন Security অপশনটি ।অপশনটিতে ক্লিক করার পর প্রথমেই পাবেন Secure browsing অপশনটি ।ডানপাশের Edit-এ গিয়ে এটি Enabled করে দিন ।এর নিচেই পাবেন Login notification।Login Notifications-এর ডান পাশে Edit-এ ক্লিক করুন। Email ও Text message/Push notification এর পাশের বক্সে টিক চিহ্ন দিয়ে Save Changes-এ ক্লিক করুন।এই অপশনটি On করলে যখনি অন্য কোনো কম্পিউটার অথবা ডিভাইস থেকে আপনার একাউন্টে Login করা হবে তখনি আপনার ইমেইল ঠিকানায় একটি মেইল চলে আসবে ।সেইসাথে যদি আপনার মোবাইল নম্বর ফেসবুকে Add থাকে তবে একটি Text Msg পাবেন ।
Login Approvals নিরাপত্তার আরেকটি অপশন ।এটি চালু করতে এর ডান পাশে Edit-এ ক্লিক করে Require me to enter a security code sent to my phone বক্সে টিক চিহ্ন দিন ।এরপর নতুন বার্তা এলে Set Up Now-এ ক্লিক করুন। এখন Phone number বক্সে আপনার মোবাইল নম্বর লিখে Continue-তে ক্লিক করুন। আপনার মোবাইল নম্বর একটি কোড নম্বর আসবে। কোড নম্বরটি কোড বক্সে লিখে Continue-তে ক্লিক করুন এবং Save Changes-এ ক্লিক করুন। এখন লগআউট করে পুনরায় ফেসবুকে লগইন করুন। দেখবেন Name New Computer নামের একটি পেজ এসেছে। সেখানে Computer name বক্সে যেকোনো নাম লিখে Add to your list of recognized devices বক্সে টিক চিহ্ন দিয়ে Continue-তে ক্লিক করুন।এরপর থেকে প্রতিবার আপনার কম্পিউটার ব্যতীত অন্য কারও কম্পিউটার বা ডিভাইস থেকে যদি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগইন করা হয় তবে প্রথমেই আপনার মোবাইল নম্বর একটি Login Code নম্বর আসবে এবং সেই কোড নম্বরটি কোড বক্সে লিখে Continue-তে ক্লিক করলেই কেবল আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করা যাবে। আপনার ফেসবুকের পাসওয়ার্ড সবাই জেনে গেলেও কেউ আপনার ফেসবুকে Login করতে পারবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত না আপনার মোবাইলে আসা কোড নম্বরটি কোড বক্সে প্রবেশ করানো হবে।সেইসাথে আপনার ই-মেইলে একটি মেইল যাবে, যেটাতে লেখা থাকবে কে, কখন, কী নাম দিয়ে, কোন আইপি ঠিকানা থেকে আপনার ফেসবুকে প্রবেশ করেছিল।

মোবাইল নম্বর যোগ করা
ফেসবুকে মোবাইল নম্বর যোগ করলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট যদি কখনো চুরি হয়ে যায় তবে মোবাইল নম্বর দিয়ে তা উদ্ধার করতে পারবেন।সেইসাথে ফেসবুকের খবর বা নোটিফিকেশনসগুলোও মোবাইল ফোনে বিনা মূল্যে পাওয়া যায়। মোবাইল নম্বর Add করতে প্রথমে Account Settings-এ গিয়ে বামপাশের মেনু থেকে Mobile-এ ক্লিক করুন। এখন Add a Phone লিংকে ক্লিক করুন।পাসওয়ার্ড দেবার পর নতুন উইন্ডো এলে Country এবং Mobile Carrier (বাংলালিংক, সিটিসেল,গ্রামীণফোন, এয়ারটেল বা রবি) নির্বাচন করে Next-এ ক্লিক করুন। আপনার মোবাইল নম্বরটি আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে যোগ করতে না চাইলে Share my phone number with my friends বক্স থেকে টিক চিহ্নটি তুলে দিন। আপনার মোবাইল থেকে F লিখে 32665-এ মেসেজ Send করুন । ফিরতি মেসেজে আপনার কাছে একটি কোড নম্বর আসবে, সেটি কোড বক্সে লিখে Next-এ ক্লিক করলেই মোবাইল নম্বর যোগ হয়ে যাবে।

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা
ফেসবুক পেজের সবচেয়ে উপরে ডানপাশের কোণায় Home অপশনটির পাশেই Dropdown মেনুতেই Privacy Settings অপশনটি পাওয়া যাবে ।ক্লিক করে ঢোকার পর Control Your Default Privacy অপশনটি পাবেন যা আপনার স্ট্যাটাস বা পোস্টগুলো নিয়ন্ত্রনের দিক নিরদেশনা দেবে ।এখানে Public, Friends এবং Custom তিনটি অপশন পাবেন ।যদি Public অপশনটি select করেন তবে আপনার স্ট্যাটাস বা পোস্ট যে কেউ দেখতে পারবে । Friends অপশনটি select করলে যারা আপনার বন্ধুতালিকায় আছে শুধুমাত্র তারাই দেখতে পারবে ।যদি Custom অপশনটি select করেন তবে Specific People নির্বাচন করতে পারবেন।
এরপর আসুন How you connect অপশনটিতে ।এর ডান পাশে Edit Settings -এ ক্লিক করুন। ।এবার কারা কারা আপনাকে Friend Request পাঠাতে পারবে ,কারা আপনাকে ফেসবুকে মেসেজ পাঠাতে পারবে , কারা আপনার ওয়ালে পোস্ট করতে পারবে ,আপনার ওয়ালে বন্ধুদের লেখা পোস্ট কে কে দেখতে পারবে ইত্যাদি সম্পাদনা করতে পারবেন ।
এরপর Privacy Settings এর আরেকটি অপশন How tag works এর ডান পাশে Edit Settings -এ ক্লিক করুন। এখানে প্রথমেই পাবেন Timeline review অপশনটি।এটি On করলে যখন কেউ আপনার ওয়ালে কিছু পোস্ট করবে সেটি Timeline- এ যাবার আগে আপনি রিভিউ করতে পারবেন।আপনি Accept করার পরই সেটা ওয়ালে পোস্ট হবে ।আরেকটি অপশন Tag review যা On করলে, কেউ আপনাকে কোনো পোস্ট বা ছবিতে ট্যাগ করলে অথবা
কেউ যদি আপনার কোন পোস্ট বা ছবিতে অন্য কাউকে(যে আপনার বন্ধু তালিকায় নেই)ট্যাগ করতে চায় তবে review হিসেবে প্রথমে আপনি দেখতে পাবেন এবং আপনি Accept করলেই সেটি ট্যাগ হবে ।এরপর রয়েছে Tag suggestion অপশনটি ।এখানে দুটি অপশন পাবেন Friends এবং No One । No One নির্বাচন করলে,কেউ ছবি আপলোড করার পর ট্যাগ করার সময় আপনার নাম Suggestion হিসেবে প্রদর্শিত হবেনা । Friends নির্বাচন করলে,বন্ধু তালিকার কেউ ছবি আপলোড করার পর ট্যাগ করার সময় আপনার নাম Suggestion হিসেবে প্রদর্শিত হবে ।

কাউকে ব্লক করতে
কেউ যদি ফেসবুকে আপনাকে বারবার বিরক্ত করে তাহলে আপনি তাকে ব্লক করে দিতে পারেন।ব্লক করা ব্যক্তি আপনার কোনো কিছুই দেখতে পারবেনা ।সেইসাথে ফেসবুকে আপনাকে কোথাও খুঁজেও পাবেনা । কাউকে ব্লক করতে হলে Privacy Settings-এ ক্লিক করুন। এখন একেবারে নিচে Block people & Apps এর ডান পাশে Manage Blocking -এ ক্লিক করুন। নতুন পেজ এলে Block users অপশন পাবেন যেখানে Name অথবা Email বক্সে কারও নাম বা ই-মেইল আইডি লিখে Block-এ ক্লিক করে তাকে ব্লক করে দিতে পারেন।

অ্যাকাউন্ট বন্ধ করা
আপনি যদি আর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে না চান, তাহলে Account Settings-এ গিয়ে বামপাশের মেনু থেকে Security-তে ক্লিক করুন। এখন সবার নিচে Deactivate your Account-এ ক্লিক করুন। নতুন পেজ এলে আপনি কেন আপনার অ্যাকাউন্টটি Deactivate করতে চান তা জানতে চাইবে। অনেকগুলো অপশন থেকে যেকোনো একটি নির্বাচন করে Confirm-এ ক্লিক করুন। পুনরায় Activate করতে চাইলে শুধু login করলেই আবার অ্যাকাউন্টটি Activate হয়ে যাবে।
একেবারে স্থায়ীভাবে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ বা Delete করতে চাইলে https://www.facebook.com/help/contact.php?show_form=delete_account এই ঠিকানায় গিয়ে Delete My Account বোতামটি ক্লিক করতে হবে।তবে মনে রাখবেন অ্যাকাউন্ট একবার Delete করলে সেই একাউন্ট আর রিএক্টিভেট করা সম্ভব নয় ।

দেখুন নিজের টাইমলাইন
আপনার টাইমলাইন প্রোফাইলে Activity Log অপশনটির ডান পাশেই একটি তারকা চিহ্নিত মেনু দেখতে পাবেন যাতে ক্লিক করলে View as অপশনটি আসবে । অপশনটি ক্লিক করলে আপনার টাইমলাইন প্রোফাইল অন্যদের কাছে কিভাবে প্রদর্শিত হয় তা আপনাকে দেখাবে ।

সংগ্রহিত

Advertisements

About মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট প্রত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করি এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষামার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

Posted on 05/03/2012, in ফেইজবুক and tagged . Bookmark the permalink. এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান.

পোষ্টটি আপনার কেমন লেগেছে? মন্তব্য করে জানান।

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: